আজ : মঙ্গলবার | ২রা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৭ই জুলাই, ২০১৮ ইং | ৩রা জিলক্বদ, ১৪৩৯ হিজরী

আজ অঘোষিত সেমিফাইনালে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা

hjhএডিটর ডেস্ক : শ্রীলঙ্কায় অনুষ্ঠিত নিদাহাস ট্রফিতে শুক্রবার (১৬ মার্চ) দু’দলের জন্যই বাঁচা-মরার লড়াই। বলা যায় অঘোষিত সেমিফাইনাল। কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় স্বাগতিক শ্রীলঙ্কা ও বাংলাদেশের গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ।

আজকের খেলার জয়ী দলই রবিবার (১৮ মার্চ) ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টে ভারতের বিপক্ষে ফাইনালে খেলবে। গুরুত্বপূর্ন ম্যাচের আগে চমক দিয়ে বাংলাদেশের জন্য সুখবর হয়ে এসেছেন সাকিব আল হাসান। যদিও সাকিববিহীন বাংলাদেশ যে মাঝে মাঝে জ্বলে উঠতে পারে তার প্রমাণ বাংলাদেশ বহুবার দিয়েছে। তবে এই দেয়াটার মধ্যে ধারাবাহিকতার ঘাটতি আছে।

বাঁহাতের কনিষ্ঠ আঙুলের ইনজুরি থেকে পুরোপুরি ফিট। বৃহস্পতিবার (১৫ মার্চ) শ্রীলঙ্কায় দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন সাকিব। এবার শুধুই দলকে আত্মবিশ্বাস জোগাতে যাননি। সব ঠিক থাকলে শুক্রবার বাংলাদেশকে নেতৃত্বও দিতে পারেন। বিশ্বের দ্বিতীয় সেরা অলরাউন্ডারকে পেয়ে টাইগার শিবিরে ফিরেছে স্বস্তি। সাকিব ফিরলেই তো দলের জন্য বাড়তি আত্মবিশ্বাস, বাড়তি শক্তি, একই সঙ্গে দলের কম্বিনেশন নিয়ে চিন্তামুক্ত টিম ম্যানেজমেন্টও! সাকিবের ফেরাতে হয়তো প্রতিপক্ষ দলের উপর বাড়তি চাপও তৈরি হয়ে গেছে। ব্যাটিংয়ে দারুন ছন্দে আছেন মুশফিকুর রহিম। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে অাগের ম্যাচে ২১৫ তাড়া করে জেতার রেকর্ড তো আছেই। তাহলে কি স্বাগতিকদের হারিয়েই ফাইনালে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ?

নিদাহাস ট্রফির শুরু থেকেই প্রতি ম্যাচের আগে বৃষ্টির ভয় থাকছে। তবে কোনো ম্যাচই এখনও বৃষ্টির কারণে পরিত্যাক্ত হয়নি। তবে আজ যদি তেমনটা হয়ে যায় তাহলে বাংলাদেশের জন সেটা দুঃসংবাদ হয়ে যাবে। দু’দলই একটি করে ম্যাচ জিতেছে। আজ যদি ম্যাচ পরিত্যাক্ত হলেও দু’দলের পয়েন্ট হবে সমান। কিন্তু নেট রানরেটে এগিয়ে যে শ্রীলংকা। আর তাই প্রেমাদাসায় টস জেতা খুবই ঘুরুত্বপূর্ণ। তুলনামুলন দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে সুবিধা হয়। শুধু বাংলাদেশ্ই বুধবার ভারতের বিপক্ষে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করে জিততে পারেনি। উইকেট তো ব্যাটিং সহায়ক হচ্ছেই। তবে শেষ ম্যাচে উইকেট কিছুটা স্লো ছিল। সাকিব একাদশে থাকলে একজন ব্যাটসম্যান বেড়ে যাবে টাইগারদের। সেক্ষেত্রে একাদশের বাইরে যেতে হতে পারে টুর্নামেন্টে একটি উইকেটও না পাওয়া নাজমুল ইসলাম অপুকে।

শুরু থেকেই দুর্দান্ত বোলিং করছেন রুবেল হোসেন। আগের ম্যাচে সুযোগ পাওয়া বাঁ-হাতি পেসার আবু হায়দার রনিও প্রথম তিন ওভার দারুন করেছিলেন। দলের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ মনে করছেন, চাপে থাকবে শ্রীলংকাই।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘চাপের কথা বললে হয়ত সেটা শ্রীলঙ্কাই অনুভব করবে। তাদের ঘরের মাঠ। তাদের দর্শক। প্রত্যাশা বেশি। আবার দর্শকের সমর্থন একটা শক্তিও। আমাদের জন্য নতুন একটি খেলা। নতুনভাবে মাঠে নেমে পরিকল্পনা কিভাবে কাজে লাগাতে পারি, সেটা নিয়েই ভাবতে হবে।’ বড় রান করার জন্য টপ অর্ডারের ভালো শুরুর দিকেই তাকিয়ে থাকবে বাংলাদেশ। বাংলাদেশের ভয় শ্রীলঙ্কার দুই কুশলকে (কুশল মেন্ডিস ও কুশাল পেরেরা) নিয়ে। দু’জনেই দুর্দান্ত ব্যাটিং করছেন। সর্বশেষ পাঁচ ম্যাচের মধ্যে কুশল মেন্ডিসের রয়েছে চারটি হাফ সেঞ্চুরি। তবে স্বাগতিকদেও দুঃশ্চিন্তা এখন তাদের বোলিং নিয়ে। তাতে সুযোগটা বাংলাদেশেরই হবে। তবে বাঁচা-মরার ম্যাচে অনেক কিছুই টাইগারদের পক্ষে আছে। এবার সেটা মাঠে প্রয়োগ করতে পারলেই লঙ্কা-বধ জয় হবে নিশ্চিত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ