আজ : শুক্রবার | ১লা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৭শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

মুঠোফোন দিয়ে নিয়ন্ত্রণ হবে নতুন স্মার্ট টিভি

WE32DH_02নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রযুক্তি নিয়ে নিয়মিত গবেষণার ভিত্তিতে স্থানীয় বাজারে সাশ্রয়ী মূল্যে লেটেস্ট সব প্রযুক্তির টেলিভিশন নিয়ে আসছে দেশের ইলেকট্রনিক্স জায়ান্ট ওয়ালটন। এরই ধারাবাহিকতায় এবার ওয়ালটনের নতুন চমক- ইন্টারনেট ভিত্তিক ৩২ ইঞ্চি এন্ড্রয়েড স্মার্ট টিভি। যা নিয়ন্ত্রণ বা পরিচালনা করা যাবে এন্ড্রয়েড এবং আইওএস সমৃদ্ধ সকল ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন দিয়ে। এক্ষেত্রে টিভি রিমোট ছাড়াই এর সকল কাজ সম্পন্ন করবে গ্রাহকের হ্যান্ডসেটে ইনস্টলকৃত ই-শেয়ার অ্যাপসের রিমোট অপশনটি। যেখান থেকে গ্রাহক তার সুবিধামত কী রিমোর্ট, টাচ রিমোট, মাউস ও এয়ার মাউস- এই চারটি ভিন্ন ফরমেটের রিমোট অপশন বেছে নিতে পারবেন। এর মাধ্যমে গ্রাহক ঘরের যে কোন প্রান্ত থেকেও মুঠোফোনে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন টিভির কনটেন্ট।

জানা গেছে, সম্প্রতি দেশের টেলিভিশন বাজারে বৈচিত্র্যময় ডিজাইনের ৩২ ইঞ্চি স্মার্ট টিভি ছেড়েছে ওয়ালটন। প্রাথমিক পর্যায়ে তিনটি ভিন্ন ভিন্ন মডেলের স্মার্ট টিভি ছেড়েছে দেশীয় প্রতিষ্ঠানটি। যেগুলোর দাম নির্ধারণ করা হয়েছে যথাক্রমে ২৪,৫০০ টাকা, ২৫,৫০০ টাকা ও ২৫,৯০০ টাকা। আপকামিং এর তালিকায় রয়েছে আরো দুটি মডেল।

ওয়ালটনের অত্যাধুনিক প্রযুক্তির স্মার্ট টিভির বিশেষ দিক সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানটির টেলিভিশন গবেষণা ও উন্নয়ন (আরএ্যান্ডডি) বিভাগের ফার্স্ট সিনিয়র এ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টর জানান, নতুন এই টিভির মাদারবোর্ডে ব্যবহার করা হয়েছে উচ্চ গতি সম্পন্ন কোয়াড-কোর প্রসেসর। সংযোজন করা হয়েছে বিল্ট ইন ওয়াই-ফাই। এতে করে, গ্রাহকরা টিভিতেই ইন্টারনেট ব্রাউজিং ও ডাউনলোডের কাজ করতে পারবেন। এন্ড্রয়েড এবং আইওএস সমৃদ্ধ সকল ব্র্যান্ডের স্মার্টফোন দিয়ে পরিচালনা করা যাবে ওয়ালটনের স্মার্ট টিভি। ফলে, রিমোট ছাড়াই টিভি পরিচালনা করা যাবে।  ওয়ালটন স্মার্ট টিভি মডেলের মেকানিক্যাল ডিজাইনার বলেন, ক্রেতা চাহিদা ও গুণগত পিকচার এর দিক বিবেচনা করে ওয়ালটন ই-শেয়ার টিভি ডিজাইন করা হয়েছে স্লিম ব্যাকলাইট প্রযুক্তিতে, যার পুরুত্ব মাত্র ০.৮ ইঞ্চি।

উল্লেখ্য, সর্বাধুনিক ও অটোমেটিক প্রডাকশন লাইনে তৈরি হচ্ছে ওয়ালটনের এলইডি টেলিভিশন। প্লাস্টিক কেবিনেট, স্পীকার, রিমোট কন্ট্রোল ইউনিট, মাদার বোর্ড, ইলেকট্রিক ক্যাবল এবং প্যানেল প্রডাকশনের জন্য পৃথক ম্যানুফাকচারিং লাইন স্থাপন করা হয়েছে। এর ফলে এলইডি টিভি উৎপাদনে বাংলাদেশ যেমন স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন করছে; তেমনি নিজস্ব তত্ত্বাবধানে সঠিক মান নিয়ন্ত্রণ সম্ভব হচ্ছে। এছাড়া নিজস্ব কারখানায় মৌলিক কাঁচামাল থেকে প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ তৈরি করায় উৎপাদন খরচ কমে এসেছে বহুলাংশে। যার সুফল ভোগ করছেন ক্রেতারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ