আজ : শুক্রবার | ১লা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৭শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

ছেলেদের ঘর জামাই হতে সমস্যা কোথায়?

jjjjমুন্নু চাকমা : ঘরজামাই,  শব্দটা আমাদের সমাজ বা দেশের মানুষ সহজ ভাবে নিতে পারে না, কিন্তু কেন নিতে পারে না তা আমি বুঝি না। এই শব্দের মাঝে নেই কোন জটিলতা। প্রয়োজন সহজ সমাধানের দৃষ্টিপাত। সহজ ভাবে মেনে নিতে পারলেই সহজ আর না মানতে পারলেই জটিল। আর সহজ ভাবে নিতে না পারার কারনেই এই শব্দটা এখনো জটিল হয়ে আছে। ঘর জামাই শব্দ বলে শব্দ আছে এমনটা ভেবে না নিলে কি হয় না?
সব পরিবারেই পুত্র সন্তান থাকে না। আর যে পরিবারে পুত্র সন্তান থাকে না সেই পরিবারে বৃদ্ধকালে বাবা মা’র সহায় হতে হয় মেয়েকেই। ঘর জামাই মানে শ্বশুর বাড়িতে থেকে শ্বশুরের খেয়ে দিন যাপন করা। আপনি যদি নিজে ইনকাম করে শ্বশুর বাড়িতে থেকে শ্বশুর শাশুড়ি দেখা শোনা করেন এখানে নিজের আত্মমর্যাদার ক্ষুন্ন হওয়ার কোন প্রশ্নই তো আসে না। আপনি যদি নিজের শশুর শাশুড়িকে নিজের বাবা মা ভেবে নিতে পারেন তবে সেই বাড়িতে থাকার প্রবলেম কোথায়? আর যদি তা নাই পারেন তবে নিজ দায়িত্বে শ্বশুর-শ্বাশুরিকে নিজের বাসায় নিয়ে যাওয়াটাও মন্দ না। কিন্তু আমাদের সমাজ তো সমাজই, এর কোনটাই ভালো চোখে দেখেনা । মেয়ের জামাই শ্বশুর বাড়ি গিয়ে থাকলে হাসাহাসি করে বলে “দেখো দেখো ছেলে ঘর জামাই হয়ে আছে”। আর শ্বশুর শাশুড়ি মেয়ের জামাইয়ের বাড়ি গিয়ে থাকলে বলে “দেখো দেখো বুড়া কালে জামাইয়ের ঘাড়ে এসে চেপেছে,  বেচারা জামাই “।
আমার প্রশ্ন হলো, একটি মেয়ে যদি বিয়ের পর শ্বশুর বাড়িকে আপন করে নিয়ে সেই বাড়ির মানুষের সেবা করতে পারে তো ছেলে কেন পারবে না তার শ্বশুর বাড়িকে আপন করে নিতে? আর, আমাদের সমাজের মানুষগুলো মেয়েদের আরেক পরিবারকে আপন ভেবে দেখা শোনা করাটা মেনে নিতে পারে তবে ছেলেরা  এমন করলে তা কেন তারা মেনে নিতে পারে না? সমাজের এই দৃষ্টিভঙ্গি বদলানোর দরকার আছে কি?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ