আজ : শুক্রবার | ১লা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ২৭শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

স্ত্রীর দায়েরকৃত মামলায় প্রবাসী স্বামীকে গ্রেফতারের নির্দেশ

pixlrঅাতিক ইকবাল (শরীয়তপুর)  প্রতিনিধিঃ শরীয়তপুরে প্রবাসীর বিরুদ্ধে তার স্ত্রীর দায়েরকৃত “১৯৮০ সনের যৌতুক নিরোধ অাইনের ৪ ধারায়” করা মামলায় ইতালী প্রবাসী অাজিজ অাকবর শামীম(২৭) কে গতকাল ০৮ নভেম্বর ২০১৭ইং বুধবার গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছে অাদালত।

বাদী পক্ষের অাইনজীবি এ্যাডভোকেট অাবুল কালাম অাজাদ বলেন, গত ০৯ অক্টোবর ২০১৭ ইং তারিখে শরিয়তপুর চীফজুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট অামলী অাদালতে উক্ত (সংগত কারনেই নাম গোপন রাখা হলো) গৃহবধূ নিজে অাদালতে উপস্থিত হয়ে তার প্রবাসী স্বামী অাজিজ অাকবরকে ১নং অাসামী ও চাচাশ্বশুর ছায়েদ মাদবর কে ২নং অাসামী করিয়া তাহাদের বিরুদ্ধে “১৯৮০ সনের যৌতুক নিরোধ অাইনের ৪ ধারায়” অভিযোগ দায়ের করলে অভিযোগ গ্রহন করে বিজ্ঞ অাদালত এবং ০৮ নভেম্বর ২০১৭ইং তারিখে অভিযুক্তদের অাদালতে উপস্থিত থাকার নির্দেশ প্রদান করে শুনানির তারিখ ধার্য করিয়া সমনজারি করেছিলেন। তারই প্রেক্ষিতে গতকাল ০৮ নভেম্বর বুধবার মামলার ২নং অাসামী ছায়েদ মাদবর অাদালতে উপস্থিত হন কিন্তু মামলার ১নং অাসামী অাজিজ অাকবর উপস্থিত না হওয়ায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারের নির্দেশ (ওয়ারেন্ট অর্ডার) প্রদান করেন বিজ্ঞ অাদালত।

মামলার বাদী ও তার পরিবারের লোকজন বলেন, গতকাল অাদালতে পৌছলে ১০-১২জন বিভিন্ন বয়সী অপরিচিত লোকজন নানাভাবে অামাদের ভয়ভীতি দেখিয়েছে, ঐ লোকগুলো অামাদের বলছিলো মামলা করে কি করবেন? মামলা উঠাইয়া ফেলেন, অামরা ফয়সালা কইরা দেবো, মামলা টামলা  কইরা কিছুই করতে পারবেন না। ঐ লোকগুলোর  পরিচয় জানতে চাইলে তারা বলেন, অামরা এইখানেরই স্থানীয় লোকজন, অাসামী পক্ষে অামাদের অাত্বীয়, হাজিরার পরে কথা হবে কেমন। এই বলে ২নং অাসামী ছায়েদ মাদবরের সাথে কানে কানে কথা বলে চলে যায়। অামাদের অাদালত প্রাঙ্গনে এসেও এমন বিব্রত করার মানেটা কি বুঝলাম না। যতকিছুই হোক অামরা অাদালতের সুবিচারের অপেক্ষা করছি এবং অাদালতের প্রতি সে বিশ্বাসও অাছে অামাদের, এই প্রতারক পরিবারের যথাযথ বিচার অাদালতই করবে । অামরা বিচার দাবী করছি। না হলে হয়তো অারো মেয়ের জীবন ধংস হবে। ইউরোপে থেকেও যাদের যৌতুক চাইতে হয় তারা অনেক কিছুই পারে।

ঘটনাসূত্র ছিল এমন, অভিযুক্ত ১নং অাসামী ইতালী প্রবাসী অাজিজ অাকবর শামিম (২৭) নড়িয়া উপজেলার কেদারপুর ইউনিয়নের কেদারপুর গ্রামের অালি অাকবর মাদবরের পুত্র, মামলার ২নং অাসামী ছায়েদ মাদবর, মৃত অাইয়ুব অালি মাদবরের পুত্র ।

গত ১১-১০-২০১৬ইং তারিখ মুসলিম বিবাহ অাইন অনুযায়ী কাবিন রেজিস্ট্রি করে প্রবাসী অাজিজ অাকবরের বিয়ে হয়। বিয়ের পর ঢাকায় জমি কিনবে বলে শ্বশুর বাড়ী হতে ৫ লক্ষ টাকা যৌতুক দাবী করেন অাজিজ অাকবর। যৌতুকের টাকা না পেয়ে সংসারে অসান্তীর সৃষ্টি করে স্ত্রীকে মানুষিক নির্যাতন করতে থাকে। এক পর্যায়ে মামলার ১নং অাসামী অাজিজ অাকবর (স্বামী) ও ২নং অাসামী ছায়েদ মাদবর ( চাচা শ্বশুর) উক্ত গৃহবধূর পিতা মাতা মেয়েকে দেখতে মেয়ের শ্বশুর বাড়ি গেলে  অপমান করে গৃহবধূ কে সহ বাড়ি হতে তাড়িয়ে দেয়। এর পর কাউকে না বলেই মামলার ১নং অাসামী অাজিজ অাকবর ইতালী চলে যান এবং তার চাচা ২নং অাসামী ছায়েদ মাদবর গৃহবধূর পরিবার কে জানান, যৌতুকের উক্ত টাকা না দিলে অার এ বাড়িতে অাপনাদের মেয়েকে পাঠানোর দরকার নাই। গত ০৭-০৮-২০১৭ তারিখে স্বাক্ষর করে একটি কাগজে ইতালি হতে তালাক নোটিশ পাঠিয়ে  চাচা শ্বশুরের মাধ্যমে তালাক দাবী করেন। ওই কাগজটি ভূয়া বলে মনে করেন মুনিরার পরিবার। কম্পিউটারে টাইপ করে পাঠিয়েছে অাজিজ অাকবর তা দাবী করে বলেন, পাঠিয়েছেন তার “উকিল নোটিশ”, নেই কোন দপ্তরের সিল, নেই কারো স্বাক্ষর, ভূয়া কাগজ টা দেখিয়ে বলে, ঐ কাগজের শেষ অংশে অাবার লেখা অাছে ‘অাবেদন”!  প্রবাসী অাজিজ মাদবরের স্ত্রী কে তালাকের সমস্ত ক্ষমতা অর্পন করেছেন চাচা ছায়েদ মাদবরের নিকট।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ